ইসলামী ছাত্র মজলিসের কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি পরিষদের বার্ষিক অধিবেশন অনুষ্ঠিত

সংগঠন সংবাদ

বন্যার্ত এলাকায় ত্রাণ ও পুনর্বাসন ব্যবস্থাপনায় সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে-ছাত্র মজলিস কেন্দ্রীয় সভাপতি

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র মজলিসের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মদ তারিক বিন হাবীব বলেছেন, বাংলাদেশের অনেক জেলা বন্যাকবলিত। লাখ লাখ মানুষ পানিবন্দী। খাবারের যোগান দিতে পারছেনা, বিশুদ্ধ পানির অভাব। গবাদি পশু লালনপালন করতে পারছেনা। করোনার প্রাদুর্ভাবে এমনিতেই অনেকের আয়রোজগার বন্ধ। বন্যায় আরো পর্যদুস্থ করে দিয়েছে মানুষকেকে। তাই আমাদের বিত্তবানরা বন্যাকবলিত মানুষের পাশে এসে দাড়াতে হবে এবং সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।

আজ বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র মজলিসের ২০১৯-২০ সেশনের কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি পরষিদের বার্ষিক অধিবেশনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন দেশের শিক্ষাঙ্গন, চিকিৎসালয়সহ প্রতিটি সেক্টরে দুর্নীতি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। এই অবক্ষয় থেকে জাতিকে মুক্তি দিতে ইসলামী শিক্ষা দেওয়া ছাড়া বিকল্প নেই। বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র মজলিসের কাজকে বেগবান করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
সংগঠনের সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ উবায়দুর রহমান এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্মমহাসচিব মাওলানা জালালুদ্দিন আহমদ, ইসলামী ছাত্র মজলিসের প্রাক্তন কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আজিজুর রহমান হেলাল, মাওলানা হারুনুর রশীদ ভূঁইয়া, মুফতি আব্দুর রহীম সাঈদ, ঢাকা মহনগরীর সাবেক সভাপতি মাওলানা আমানুল্লাহ, কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষন সম্পাদক সালা উদ্দিন সাকি, বায়তুলমাল সম্পাদক লোকমান আহমদ, কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মুহাম্মদ খালেদ সাইফুল্লাহ, ছাত্রকল্যাণ সম্পাদক মুহাম্মদ রশীদ মুশতাক, শিক্ষা ও ক্যাম্পাস বিষয়ক সম্পাদক আল মাহমুদ আতিক, প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য মাহদি হাসান জামাল প্রমুখ।

অধিবেশনে গৃহিত প্রস্তাবনামূহ হচ্ছেঃ
১. শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ বিবেচনা করে বাস্থবিধি মেনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে হবে।
২. বিদ্যুৎ, গ্যাস ও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণে সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।
৩. বন্যার্ত এলাকায় ত্রাণ ও পুনর্বাসন ব্যবস্থাপনায় সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।
৪. গণপরিবহন এর অতিরিক্ত ভাড়া প্রত্যাহার করতে হবে।
৫. ইসরাইলের সাথে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সম্পাদিত চুক্তি বাতিল করতে হবে।
৬. সারা বিশ্বে মুসলিম নির্যাতন বন্ধ করতে মুসলিম উম্মাহর ঐক্য গড়ে তুলতে হবে।