সিলেটে বন্যার পদধ্বনি

সারাদেশ

ভয়েস টাইমস: সিলেটে বন্যার পদধ্বনি।সিলেটে করোনা দুর্যোগের মধ্যে বন্যার পূর্বাভাস।বন্যার প্রবল আশঙ্কা রয়েছে। ইতিমধ্যে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। করোনাকালে যদি বন্যা হয়, তবে সীমাহীন দুর্ভোগে পড়বেন সিলেটের মানুষ।

জানা গেছে, সিলেটে টানা বৃষ্টি হচ্ছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত থেকে শুরু করে শুক্রবার সারা দিনই বৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টির গতিবেগও ছিল বেশি। অব্যাহত বৃষ্টিতে বেড়ে গেছে সিলেটের বিভিন্ন নদ-নদীর পানি। সুরমা ও সারি নদীর পানি প্রবাহিত হচ্ছে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সিলেট কার্যালয়ের দায়িত্বশীলরা জানিয়েছেন, বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে এমন পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অফিস। ফলে সিলেটে বন্যার আশঙ্কা তীব্র হচ্ছে।

আজ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বিভিন্ন নদীর পানির উচ্চতার তথ্য দিয়েছে পাউবো। তাতে দেখা যায়, সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ০.২৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। অন্যদিকে, সারি নদীর পানি সারিঘাট পয়েন্টে একই সময়ে বিপৎসীমার ০.১১ সেন্টিমিটার দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।

এদিকে, সুরমা নদীর পানি সিলেট পয়েন্টেও বেড়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় এ পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ৯.৭০ সেন্টিমিটার। আজ সন্ধ্যা ৬টায় পানির উচ্চতা ১০.১১ সেন্টিমিটারে দাঁড়ায়।

বেড়েছে কুশিয়ারা নদীর পানিও। গতকাল আমলশিদ পয়েন্টে কুশিয়ারার পানি ছিল ১৪.০৩ সেন্টিমিটার। আজ সন্ধ্যা ৬টায় এ পয়েন্টে নদীর পানি বেড়ে হয়েছে ১৩.৪৩ সেন্টিমিটার।

কুশিয়ারা নদীর পানি বেড়েছে শেওলা পয়েন্টে। বৃহস্পতিবার যেখানে পানির উচ্চতা ছিল ১১.৩১ সেন্টিমিটার, আজ সেখানে পানি বেড়ে হয়েছে ১১.৭০ সেন্টিমিটার। আর ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে কুশিয়ারার পানির উচ্চতা কাল ছিল ৯.০৭ সেন্টিমিটার, আজ সন্ধ্যা ৬টায় হয়েছে ৯.১২ সেন্টিমিটার।

এদিকে, কানাইঘাটের লোভা নদীর পানি গতকাল সন্ধ্যা ৬টার চেয়ে আজ সন্ধ্যায় ১.০৪ সেন্টিমিটার বেড়েছে। গতকাল ছিল ১৩.৭৮ সেন্টিমিটার। আজ হয়েছে ১৪.৮২ সেন্টিমিটার।

জানা গেছে, নদীর পানি বাড়তে থাকায় সিলেটেরে জৈন্তাপুর ও গোয়াইনঘাট উপজেলার নিম্নাঞ্চল ইতিমধ্যে প্লাবিত হয়েছে। কানাইঘাটের নিম্নাঞ্চলও প্লাবিত হচ্ছে।